শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ১২:৫৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম
শিরোনাম
লাবিবের না ফেরার দেশে বুক ফাটা আহাজারি বাবা-মা পত্নীতলায় মারা গেল সাপের কামড়ে এক শিশু শিবপুরে আলিম পরীক্ষার কেন্দ্র পরিদর্শন করলেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব -শাহনেয়াজ দিলরুবা খান ভালুকায় পৃথক অভিযানে সংঘবদ্ধ চোর চক্রের ৪ সদস্য আটক ভালুকায় আঁশমুক্ত ও সুমিষ্ট আম্রপলি আম বাণিজ্যিক ভাবে চাষে কামালের ভাগ্য বদল নওগাঁয় বিস্কুট খেয়ে দুই শিশুর মৃত্যুর অভিযোগ! শিবপুরে কিশোর গ্যাং কুপিয়ে হত্যা করলো সবজি বিক্রেতা কে ভালুকায় আবারো ৮ শিক্ষার্থী ও এক শিক্ষককে বহিষ্কার মধুপুর প্রেসক্লাবের নতুন কার্যকরী কমিটি গঠন সপ্তাহে দেড় দিন এবং রাত ৮টার পর বন্ধ থাকবে সব দোকানপাট

মাদক ব্যবসায়ীকে ছেড়ে দেয়ায় জনতার হাতে পুলিশ অবরুদ্ধ

Reporter Name / ৮ Time View
Update : শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ১২:৫৯ পূর্বাহ্ন

রংপুর প্রতিনিধি, হাবিবুর বকশী: রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার গজঘন্টা ইউনিয়নের গাওছোঁয়া বাজারে মধ্যরাতে মাদক ব্যাবসায়ীর কাছ থেকে টাকা নিয়ে মাদক ব্যবসায়ীকে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগে ৪ জন পুলিশকে অবরুদ্ধ করেছে স্থানীয়রা।

বুধবার ১১ অক্টোবর দিবাগত মধ্যরাতে উপজেলার গজঘন্টা ইউনিয়নের গাওছোঁয়া বাজারে মাদক ব্যবসায়ীর কাছে ৫০ হাজার টাকা ঘুষ নিয়ে ছেড়ে দেওয়ায় অভিযোগে ৪ পুলিশ সদস্যকে অবরুদ্ধ করে রাখে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। প্রায় আড়াই ঘণ্টা পর স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের সহযোগিতায় তাদের উদ্ধার করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গঙ্গাচড়া মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) একরামুল হক, সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) সোহেল রানাসহ পুলিশের চার সদস্য বুধবার দিবাগত রাত বারোটায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার গজঘন্টা ইউনিয়নের গাওছোঁয়া বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে মাদক ব্যবসায়ী দম্পতি মন্তাজ আলী (৫০) ও মর্জিনাকে (৪২) ফেনসিডিলসহ গ্রেফতার করে।

এর কিছুক্ষণের মধ্যে ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে মনতাজকে ছেড়ে দিয়ে মর্জিনাকে থানায় নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে বিক্ষুব্ধ জনতা ওই চার পুলিশ সদস্যকে অবরুদ্ধ করে রাখেন।

খবর পেয়ে তাঁদের উদ্ধার করতে যান গঙ্গাচড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল হোসেন। এ সময় ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী তাঁদেরও আটকে রাখে।

পরে ইউপি চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী ঘটনাস্থানে গিয়ে জনসাধারণকে বুঝিয়ে ওসির কাছে মাদক ব্যবসায়ী মনতাজকে গ্রেপ্তারের আশ্বাস নিয়ে পুলিশ সদস্যদের উদ্ধার করেন।
একাধিক সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় গজঘন্টা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন এবং ছবিতে স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে। তবে তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি অস্বীকার করে প্রসঙ্গ এড়িয়ে যান।
গঙ্গাচড়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ দুলাল হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বেস্ততা দেখিয়ে বিষয়টি এড়িয়ে যান।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এ সার্কেল, অফিস, রংপুর) হোসাইন মুহাম্মদ রায়হান বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে দেখবো, পুলিশ যদি টাকা নিয়ে থাকে তাদেরকেও ছাড় দেওয়া হবে না।

রংপুরের গঙ্গাচড়া উপজেলার গজঘন্টা ইউনিয়নের গাওছোঁয়া বাজারে মধ্যরাতে মাদক ব্যাবসায়ীর কাছ থেকে টাকা নিয়ে মাদক ব্যবসায়ীকে ছেড়ে দেওয়ার অভিযোগে ৪ জন পুলিশকে অবরুদ্ধ করেছে স্থানীয়রা।
বুধবার ১১ অক্টোবর দিবাগত মধ্যরাতে উপজেলার গজঘন্টা ইউনিয়নের গাওছোঁয়া বাজারে মাদক ব্যবসায়ীর কাছে ৫০ হাজার টাকা ঘুষ নিয়ে ছেড়ে দেওয়ায় অভিযোগে ৪ পুলিশ সদস্যকে অবরুদ্ধ করে রাখে ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী। প্রায় আড়াই ঘণ্টা পর স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের সহযোগিতায় তাদের উদ্ধার করা হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, গঙ্গাচড়া মডেল থানার উপপরিদর্শক (এসআই) একরামুল হক, সহকারী উপপরিদর্শক (এএসআই) সোহেল রানাসহ পুলিশের চার সদস্য বুধবার দিবাগত রাত বারোটায় গোপন সংবাদের ভিত্তিতে উপজেলার গজঘন্টা ইউনিয়নের গাওছোঁয়া বাজার এলাকায় অভিযান চালিয়ে মাদক ব্যবসায়ী দম্পতি মন্তাজ আলী (৫০) ও মর্জিনাকে (৪২) ফেনসিডিলসহ গ্রেফতার করে।

এর কিছুক্ষণের মধ্যে ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে মনতাজকে ছেড়ে দিয়ে মর্জিনাকে থানায় নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে বিক্ষুব্ধ জনতা ওই চার পুলিশ সদস্যকে অবরুদ্ধ করে রাখেন।

খবর পেয়ে তাঁদের উদ্ধার করতে যান গঙ্গাচড়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) দুলাল হোসেন। এ সময় ক্ষুব্ধ এলাকাবাসী তাঁদেরও আটকে রাখে।

পরে ইউপি চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী ঘটনাস্থানে গিয়ে জনসাধারণকে বুঝিয়ে ওসির কাছে মাদক ব্যবসায়ী মনতাজকে গ্রেপ্তারের আশ্বাস নিয়ে পুলিশ সদস্যদের উদ্ধার করেন।
একাধিক সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় গজঘন্টা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান লিয়াকত আলী ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন এবং ছবিতে স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে। তবে তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করে এ বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বিষয়টি অস্বীকার করে প্রসঙ্গ এড়িয়ে যান।
গঙ্গাচড়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ দুলাল হোসেনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বেস্ততা দেখিয়ে বিষয়টি এড়িয়ে যান।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (এ সার্কেল, অফিস, রংপুর) হোসাইন মুহাম্মদ রায়হান বলেন, বিষয়টি তদন্ত করে দেখবো, পুলিশ যদি টাকা নিয়ে থাকে তাদেরকেও ছাড় দেওয়া হবে না।


এই ক্যাটাগরি আরও পড়ুন

তারিখ অনুসারে পুরাতন খবর

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  
এক ক্লিকে বিভাগের খবর