শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৩:৩৭ পূর্বাহ্ন

লক্ষ্মীপুরে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে দিগম্বর করে গাছে বেঁধে যুবককে পেটালেন রহিম বাহিনী

Reporter Name / ১৩ Time View
Update : শুক্রবার, ১৯ জুলাই ২০২৪, ০৩:৩৭ পূর্বাহ্ন
লক্ষ্মীপুরে বাড়ি থেকে তুলে নিয়ে দিগম্বর করে গাছে বেঁধে যুবককে পেটালেন রহিম বাহিনী।

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি :  লক্ষ্মীপুরের রামগতিতে ছাত্রলীগ নেতার সঙ্গে বিরোধের জের ধরে তার ভাই মো. সুমনকে (৩৫) পুলিশ পরিচয়ে তুলে নিয়ে গাছের সঙ্গে বেঁধে নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে ইউপি সদস্য আব্দুর রহিম ও তার লোকজনের বিরুদ্ধে। নির্জন স্থানে নিয়ে উলঙ্গ করে সুমনের শরীরে পিঁপড়া ছেড়ে দেওয়া হয়।

একপর্যায় পানি চাইলে তার মুখে কাঁদা ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। এতে তিনি বমি করলে ফের তার মুখে লতাপাতা ঢুকিয়ে পুলিশ পরিচয়দানকারীরা। বৃহস্পতিবার (৮ জুন) বিকেল সাড়ে ৪ টার দিকে সুমন এভাবেই তার ওপর নির্যাতনের বিষয়টি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন ও সাংবাদিকদের জানিয়েছেন। ওসি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ভূক্তভোগী সুমন উপজেলার চরবাদাম ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মজিদ রাজীবের বড় ভাই। তারা চরবাদাম ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক যুগ্ম-আহবায়ক আবুল বাশারের ছেলে। তারা ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্বচরসীতা গ্রামের বাসিন্দা। অভিযুক্ত আব্দুর রহিম উপজেলার চরবাদাম ইউনিউন পরিষদের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য ও একইন ইউনিয়নের যুবলীগের বিতর্কিত কমিটির সভাপতি।

ভূক্তভোগী সুমন জানায়, বুধবার (৭ জুন) রাত সাড়ে ৭ টার দিকে সুমনদের এলাকা পঞ্চায়েত বাড়ির জামে মসজিদের সামনের রাস্তায় দুটি সিএনজি অটোরিকশাযোগে কয়েকজন লোক আসে। একপর্যায়ে মামলা আছে বলে তারা সুমনকে তুলে নিয়ে যায়। পঞ্চায়েত বাড়ির জামে মসজিদ থেকে প্রায় দেড় কিলোমিটার দূরে ভুলুয়া নদীর পাশে ফিরোজ মিয়ার প্রজেক্ট এলাকায় তাকে নির্জন স্থানে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে গিয়ে তিনি সবাইকে চিনতে পারেন। সেখানে নিয়ে তাকে গাছের সঙ্গে বেঁধে ফেলা হয়। ওই লোকজন তার মোবাইলফোন থেকেই ইউপি সদস্য আবদুর রহিমকে কল দেয়। এরপর আবদুর রহিম আসার পরই তাকে উলঙ্গ করার নির্দেশ দেয়। একপর্যায়ে তার শরীরে পিঁপড়া ছেড়ে দেয়। এসময় আবদুর রহিমসহ তার লোকজন সুমনকে এলোপাতাড়ি লাথি-ঘুষি মারতে থাকে। প্রায় ৩ ঘন্টা তিনি উলঙ্গ করে রাখে। পরে তার মুখে কাঁদা ঢুকিয়ে দেওয়া হয়। পরে মুখমন্ডলে কালোকাপড় বেঁধে ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায় আব্দুর রহিম ও তার লোকজন।

এরমধ্যে পরিবারের লোকজন থানা পুলিশ ও ডিবি পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানতে পারেন যে পুলিশ কাউকে আটক করেনি। পরে পরিবার ও স্বজনরা খোঁজাখুঁজি করে ঘটনাস্থলে তাকে দেখতে পায়। খবর পেয়ে রাত ১ টার দিকে পুলিশ তাকে ঘটনাস্থল থেকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে। বৃহস্পতিবার দুপুরে তাকে হাসপাতাল থেকে বড়িতে নেওয়া হয়। সুমন বলেন, আমি বিভিন্নভাবে আব্দুর রহিম ও তার লোকজনের কাছ থেকে পানি চেয়েছি। তারা আমাকে পানি পর্যন্ত দেয়নি। তারা আমার মুখে কাঁদা ও লতাপাতা ঢুকিয়ে দিয়েছে। তারা আমাকে হত্যার চেষ্টা করেছে। আব্দুর রহিম ঘটনাস্থল পৌঁছার পরই আমার ওপর নির্যাতন শুরু করা হয়। ছাত্রলীগ নেতা আব্দুল মাজেদ রাজীব বলেন, রাজনৈতিক ঘটনা নিয়ে আব্দুর রহিমের সঙ্গে আমার বিরোধ রয়েছে। গত ডিসেম্বরে তিনি আমার হাত ভেঙে দেন।

এ ঘটনার মামলায় আদালতে আত্মসমর্পন করে আব্দুর রহিম ৮ দিন জেল খেটেছেন। পরে তিনি জামিনে বের হন। এরপর তিনি বিভিন্নভাবে আমাকে হুমকি দিয়েছে। আমার সঙ্গে শত্রুতার জের ধরেই তিনি সুমনকে তুলে নিয়ে অমানবিক নির্যাতন চালিয়েছে। আমরা এ ঘটনায় সুষ্ঠু বিচার চাই। ইউপি সদস্য আব্দুর রহিম বলেন, এ ঘটনায় আমি কিছুই জানি না। পূর্ব শত্রুতার জের ধরে আমার বিরুদ্ধে উদ্দেশ্যমূলকভাবে অভিযোগ করা হচ্ছে। ছাত্রলীগ নেতা রাজীব তার ভাইকে দিয়ে নাটক সাজিয়ে আমাকে হয়রানি করার চেষ্টা চালাচ্ছে। রামগতি উপজেলা যুবলীগের আহবায়ক মেজবাহ উদ্দিন হেলাল বলেন, ঘটনাটি শুনেছি। আব্দুর রহিম খারাপ প্রকৃতির লোক। তবে রাজীবদের সঙ্গে তাদের পূর্ব শত্রুতা রয়েছে। কেন্দ্রের নির্দেশনা অনুযায়ী চরবাদাম ইউনিয়ন যুবলীগের কমিটি স্থগিত রয়েছে। তিনি নিজেকে কেন যুবলীগের সভাপতি দাবি করছে তা আমি জানি না। এ ব্যাপারে রামগতি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আলমগীর হোসেন দৈনিক সংবাদ সারাবেলা কে বলেন, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলেছি। এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।


এই ক্যাটাগরি আরও পড়ুন

তারিখ অনুসারে পুরাতন খবর

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২
১৩১৪১৫১৬১৭১৮১৯
২০২১২২২৩২৪২৫২৬
২৭২৮২৯৩০৩১  
এক ক্লিকে বিভাগের খবর